Loading...

Follow The Modern Journal on Feedspot

Continue with Google
Continue with Facebook
or

Valid

দ্য মর্ডান জার্নাল ডেস্ক: এবারের লোকসভা ভোটের সবথেকে আলোচিত এবং চর্চিত কেন্দ্রটি বোধ হয় ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র। একসময়ের সতীর্থ এখন প্রতিপক্ষে পরিণত হয়েছে। দুজনেই পোড়খাওয়া রাজনীতিবিদ একজন  দিল্লির সংসদ ভবনের সবকটি ইট চেনেন। আরেকজন হাতের তালুর মতো চেনেন ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চল । এতক্ষনে হয়তো বুঝে গেছেন কাদের  কথা বলছি। একজন ভাটপাড়া র প্রাক্তন বিধায়ক অর্জুন সিং। আরেকজন ব্যারাকপুরের বিদায়ী সাংসদ  দীনেশ ত্রিবেদী ।
bjp west bengal news

ছবি গুগল থেকে

দুই হেভিওয়েট  প্রার্থী অর্জুন সিং এবং দীনেশ ত্রিবেদীর লড়াইটা ভোটের দিন কেমন হয় সেটা দেখার জন্য আগ্রহ ছিল সকলেরই।  সেই মতো নির্বাচন কমিশনও প্রস্তুত ছিল।  তৃণমূল বিজেপি দু’দলের কেউই ভোটের ময়দানে এক ইঞ্চি জায়গা ছাড়তে রাজি নয়। দুই দলের ক্ষেত্রেই এটা ইজ্জত বাঁচানোর লড়াই। তাই প্রথাগত নিয়ম মেনে রক্তক্ষরণের আশঙ্কা ছিল  প্রবল।  তবে দিনের শেষে আমজনতার কথায় “শিল্পাঞ্চলে এমন শান্তিপূর্ণ ভোট অনেক দিন হয়নি” 

আরো পডুুুুন: চৌকিদারকে চোর বলে কাঠগড়ায় রাহুল গান্ধী।


ভোটের দিন  সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত দুই প্রার্থীর মেজাজ  ছিল একদম ভিন্ন ধরনের। এক দিকে অর্জুন সিং কোথাও বহিরাগতদের আটকাতে গিয়ে নিজে পড়ে গিয়ে চোট পেয়েছেন।  কোথাও বা তিনি তৃণমূলে কর্মীদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন।  অন্যদিকে দীনেশ ত্রিবেদীর মেজাজ ছিল ঠিক উল্টো । তার বাড়ি ব্যারাকপুরে এলাকায় না। তাই সকাল সাতটা নাগাদ কলকাতা থেকে নিজের বাড়ি থেকে বেরিয়ে প্রত্যেক বুথে বুথে ঘোরেন।  রাস্তায় কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন।  তার চলাফেরা ফেরায় অর্জুন সিং এর মত চাঞ্চল্য লক্ষ্য করা যায়নি।  বরং তার চলাফেরায় একটা শান্ত ভাব ছিল । তার শারীরিক ভাষায় কোথাও বিন্দুমাত্র চিন্তার ছাপ ছিল না।  তবে শেষ হাসি কার মুখে ফুটবে তা নিয়ে মুখ খুলতে নারাজ দুই প্রার্থী।
bjp west bengal news

Source: themodernjournal.in

The post শেষ হাসি কার মুখে ফুটবে,সেটা দেখার জন্য আগ্রহ সকলেরই appeared first on দ্য মডার্ন জার্নাল .

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

মর্ডান জার্নাল ডেস্ক: দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর শুরু হতে চলেছে মাধুরী দীক্ষিত এর বায়োপিক। বলিউডের অন্দরে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে এই বয়পিকের কথা।  সব ঠিক থাকলে চলতি মাসেই শুরু হতে চলেছে বলিউড ডিভা মাধুরী দীক্ষিতের বায়োপিক তৈরির কাজ । ভাববেন না এখানেই চমক শেষ, আর সেই বায়োপিকে যিনি  মাধুরীর ভূমিকায়  অভিনয় করবেন তিনি হলেন আলিয়া ভাট।  সম্প্রতি মাধুরী এক সাক্ষাৎকারে নিজেই এই বায়োপিকের আভাস দিয়েছেন। বায়োপিকের জন্য মাধুরীর প্রথম পছন্দ আলিয়া । তবে আলিয়া যদি এই ছবিতে অভিনয় না করতে চায় তাহলে তিনি আলিয়ার জায়গায় কাকে আনতে চান সে বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি । মাধুরীর মতে চরিত্রের জন্য আলিয়াকে কত্থক শিখতে হবে। নাচের  সঙ্গে মাধুরীর যে নিবিড়  সম্পর্ক তা সকলেরই জানা। তাই এই বায়োপিকে যেই অভিনয় করুক সে আলিয়া ভাট বা অন্যকেউ তাকে নাচ শিখতে হবেই ।
bollywood news in bengali

প্রিয়াঙ্কা,দীপিকা, আনুষ্কার পর এবার কি তবে ক্যাটরিনার।


কলঙ্ক’ ছবিতে প্রথম বারের জন্য মাধুরীর সঙ্গে পর্দা ভাগ করে নিয়েছিলেন আলিয়া। এবং তার অভিনয় সমালোচকদের প্রশংসা কুড়িয়েছে। তাই সমালোচকদের  একাংশের মতে, আলিয়াকে কাছ থেকে দেখে এবং অভিনয়ের প্রতি আলিয়ার একাগ্রতা দেখেই এই সিদ্ধান্ত  নিয়েছিলেন মাধুরী।  ‘কলঙ্ক’- ছবির প্রচার করার সময় বরাবরই আলিয়ার প্রশংসা করেছেন মাধুরী। আলিয়া ভাট ও প্রকাশ করেছেন মাধুরীর সাথে কাজ করতে পারে তিনি গর্বিত । এবং তিনি জানান  যে তিনি মাধুরীর থেকে অনেকে কিছু শিখেছেন।  প্রসঙ্গত আলিয়া এখন তাঁর প্রথম দক্ষিণী ছবি ‘আরআরআর’ এর শ্যুটিংয়ে ব্যস্ত রয়েছেন ।  ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ ছবির  শ্যুটিং এর কাজ ও করছেন  । তারপর তিনি শুরু করবেন ‘সড়ক ২’ ও ‘ইনশাআল্লা’র কাজ। আলিয়ার হতে এখন প্রচুর কাজ  তাই মাধুরীর বায়োপিক নিয়ে তিনি একনও কিছু ভেবেছেন কিনা তা জানা সম্বভ হয়নী।
bollywood news in bengali

Source: themodernjournal.in

সবরকম চাকরির খোজ পেতে লগ ইন করুন www.sarkariexam.work

The post বায়োপিকের আভাস মাধুরীর,মাধুরীর ভূমিকায় অভিনয় করবে কে? রইল চমক। appeared first on দ্য মডার্ন জার্নাল .

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

মর্ডান জার্নাল ডেস্ক: সানরাইজার্স হায়দরাবাদ তাদের শেষ ম্যাচে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের কাছে হেরে বসায় প্লে-অফের অঙ্কটা পরিস্কার হয়ে যায় কলকাতা নাইট রাইডার্সের কাছে৷ মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে  লিগের শেষ ম্যাচ জিতলে প্লে-অফে চলে যাবে নাইটরা৷ হারলে নেট রানরেটের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে৷ সেক্ষেত্রে কলকাতার ছিটকে যাওয়ার সম্ভাবনাই প্রবল৷ কেননা, কলকাতার থেকে হায়দরাবাদের নেট রানরেট অনের ভালো।
sports news in bengali


ছবি গুগল থেকে সংগৃহীত।


অন্যদিকে মুম্বই তাদের শেষ লিগ ম্যাচটি জিততে মরিয়া পয়েন্ট টেবিলের প্রথম দুইয়ে থাকা নিশ্চিত করতে৷ সেক্ষেত্রে প্লে-অফে বাড়তি সুবিধা পাবে তারা৷ কলকাতার কাছে মুম্বই হেরে বসলে চেন্নাই ও দিল্লি প্রথম দু’টি স্থানে থেকে লিগ শেষ করবে৷ ইডেনে টসে জিতে কলকাতাকে ব্যাট করতে পাঠিয়ে হারের মুখ দেখতে হয়েছিল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে ৷ তা সত্ত্বেও নিজেদের মাঠে আরও একবার টসে জিতে কেকেআরকে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান রোহিত শর্মা৷


কলকাতা  একটি বদল করে পীযুশ চাওলার জায়গায় সুযোগ করে দেওয়া হয় প্রসিদ্ধ কৃষ্ণাকে৷ মুম্বই তাদের দলে জোড়া পরিবর্তন করেছে৷ লুইসের জায়গায় প্রথম একাদশে ঢুকেছেন মিচেল ম্যাকক্লেনাঘান৷ বরিন্দর স্রানের পরিবর্তে দলে ফিরেছেন উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান ইশান কিষাণ৷ যদিও বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান হিসাবেই মাঠে নামবেন ইশান৷ উইকেটকিপিংয়ের দায়িত্ব সামলাবেন কুইন্টন ডি’কক৷

আরও পড়ুন: ক্রিকেট বোর্ডের  ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে, দাবি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের।


কলকাতা দল: শুভমন গিল, ক্রিস লিন, রবীন উথাপ্পা, দীনেশ কার্তিক (অধিনায়ক ও উইকেটকিপার), নীতিশ রানা, আন্দ্রে রাসেল, রিঙ্কু সিং, সুনীল নারিন, প্রসিদ্ধ কৃষ্ণা, হ্যারি গারনি ও সন্দীপ ওয়ারিয়র৷


মুম্বই দল: রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), কুইন্টন ডি’কক (উইকেটকিপার), সূর্যকুমার যাদব, ইশান কিষাণ, হার্দিক পান্ডিয়া, কায়রন পোলার্ড, ক্রুণাল পান্ডিয়া, রাহুল চাহার, জসপ্রীত বুমরাহ, লসিথ মালিঙ্গা ও মিচেল ম্যাকক্লেনাঘান৷
sports news in bengali


Source: themodernjournal.in


সবরকম চাকরির খোজ পেতে লগ ইন করুন www.sarkariexam.work

The post ম্যাচ “জিতলে” প্লে-অফে চলে যাবে নাইটরা……. appeared first on দ্য মডার্ন জার্নাল .

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

মর্ডান জার্নাল ডেস্ক: ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’৷  এই মন্তব্যের জন্য রাহুল গান্ধীকে সুপ্রিম কোর্টে দুঃখ প্রকাশ বা ক্ষমা চাইতে হলেও এখনও এটাই  কংগ্রেসের স্লোগান তা আরো একবার স্পস্ট করে দিলেন কংগ্রেস সভাপতি।
bangla khobor today

সুপ্রিম কোর্টের রায় নিয়ে মন্তব্যের জেরে রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ ওঠে। প্রসঙ্গত, রাফায়েল নথি চুরি একটি  বিচারাধিন একটি বিষয়।  এই পরিপ্রেক্ষিতে রাহুলের মন্তব্য আদালত অবমাননার সামিল বলে অভিযোগ করে বিজেপি। এই অভিযোগকে সামনে রেখে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন বিজেপি সাংসদ মিনাক্ষী লেখি।

আরো একবার মোদীর বিরুদ্ধে আঙ্গুল তুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পরিকল্পিত আস্ফালন চলছে ,দাবী মমতার।

এরপর রাহুলের মন্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়ে নোটিশ পাঠায় সুপ্রিম কোর্ট। সুপ্রিম কোর্টের নোটিশের জবাবে দুঃখ প্রকাশ করেন রাহুল।  কিন্তু, রাহুলের নতি স্বীকারে মন গলেনি সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের। হলফনামা দিয়ে তাঁর মন্তব্যের ব্যাখ্যা চাওয়া হয়। সেই পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার হলফনামা জমা দিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। জানিয়ে দিলেন আগামী ৬ই মে সুপ্রিম কোর্টে অতিরিক্তি হলফনামা জমা দিয়ে ক্ষমা চাইবেন তিনি৷

শনিবার, কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ‘‘সুপ্রিম কোর্টের ওপরে নিজের একটি মন্তব্য চাপিয়ে দিয়েছিলাম। তার জন্য আমি ক্ষমা চেয়েছি। কিন্তু মোদীজি বা বিজেপির কাছে কোনও ক্ষমা প্রার্থনা করিনি। ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’-ই আমাদের স্লোগান।’’

দিল্লির মসনদ থেকে মোদী হঠাতে রাফায়েল দুর্নীতিকে  হাতিয়ার করেছে কংগ্রেস।  সেই রাফায়েল ইস্যুতেই বিতর্কিত মন্তব্য করে আদালতের কোপে পরেন তিনি৷ বিষয়টিকে পুঁজি করেছে বিজেপি৷ সুপ্রিম কোর্টের কাছে মাথা নোয়ালেও  ভোটের ময়দানে চৌকিদারকে চোর বলেই ফায়দা আদায়ে মরিয়া কংগ্রেস৷
bangla khobor today

Source: themodernjournal.in

সবরকম চাকরির খোজ পেতে লগ ইন করুন www.sarkariexam.work

The post চৌকিদারকে চোর বলে কাঠগড়ায় রাহুল গান্ধী। appeared first on দ্য মডার্ন জার্নাল .

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

দ্য মর্ডান জার্নাল ডেস্ক: ফণা তুলছে ফনী আতঙ্কে বঙ্গবাসী। দীর্ঘক্ষণ  আগেই ওড়িশার উপকূল বর্তী অঞ্চলে আছড়ে পড়েছে এই ভয়ানক ঘূর্ণিঝড়টি। ঘণ্টায় প্রায়  ১৭৫-২০০ কিমি বেগে এই ঝড় বয়ে চলেছে পশ্চিমবঙ্গের দিকে  বলে জানা গিয়েছে। প্রায় ৩-৪ ঘণ্টা হতে  পারে এই ঝড়।আবহাওয়া দপ্তরের  রিপোর্ট অনুযায়ী যে সময় আছড়ে পড়ার কথা ছিল, তার বেশ কিছুক্ষণ আগেই ওড়িশার  উপকূলবর্তী অঞ্চলে গুলিতে আছড়ে পড়ছে ফণী।

পুরী এবং গোপালপুরের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয়। এখনো পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী  সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে গঞ্জাম ও গজপতি জেলা। ঝড়ের দাপটে পুরীর সমুদ্রে প্রবল জলোচ্ছ্বাস দেখা যাচ্ছে। এলাকায়  বিদ্যুৎ পরিষেবা বন্ধ রয়েছে।   বিভিন্ন এলাকায় ঝরের তাণ্ডবে ভেঙে পড়েছে গাছ এবং ঘর বাড়ি। ঘূর্ণিঝড়ের জেরে ত্রস্ত স্থানীয় বাসিন্দারা।

ছবি গুগল থেকে সংগৃহীত।

গতকাল দিল্লির মৌসম ভবনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে ১২টার মধ্যে ফণী আছড়ে পড়বে পুরী সংলগ্ন গোপালপুরে। এরপর ঝরের তীব্রতা কিছুটা  কমিয়ে তটরেখা ধরে সেটি পশ্চিমবঙ্গে ঢুকে দক্ষিণবঙ্গের ওপর দিয়ে বাংলাদেশের দিকে চলে যেতে পারে। সেই সতর্কবার্তা অনুযায়ী ঘূর্ণীঝড় ফণী পুরীতে আছড়ে পড়ার পর এরাজ্যেও তার প্রভাবে তাণ্ডব শুরু হয়ে গিয়েছে। আর কিছুক্ষণ পরই  ফণী তার শক্তি কিছুটা কমিয়ে পশ্চিমবঙ্গে ঢুকে পড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই   নামখানা, মেদিনীপুর উপকূল, দীঘা, শঙ্করপুর, মন্দারমণি সহ বেশ কিছু জায়গায় ঝোড়ো হাওয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। মেদিনীপুরের বহু রাস্তায় গাছ ভেঙে পড়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। ভেঙে পড়েছে বেশ কিছু হোর্ডিংও। দীঘায় কাল থেকেই  পর্যটকদের সতর্ক করা হয়েছে । ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে দক্ষিণবঙ্গে  ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কার কথা আগেই জানিয়েছিল আবহাওয়া দপ্তর। রাজ্য প্রশাসন, রেল, বন্দর সহ বিভিন্ন এজেন্সিগুলি ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানি আটকানোর জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

পাকিস্তানের অবস্থা শোচনীয়, দেখে নিন কত হল নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম।

গতকাল  নবান্নে দুই পর্যায়ে উপকূলরক্ষী, নৌবাহিনী ও বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের আধিকারিকদের নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করেন মুখ্যসচিব মলয় দে। নবান্নে বিশেষ কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছ।  আজ সকাল থেকেই পুরো বিষয়ে কড়া নজর রাখছে নবান্ন। ফনীর ভয়ানক আবহাওয়ার জন্য আজ এবং আগামীকালের সমস্ত নির্বাচনী সভা বাতিল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ সকালে রাজ্যবাসীর কাছে তিনি আবেদন করেন দয়া করে সকলে বাড়িতেই থাকুন। আর কোনওরকম গুজবে কান দেবেন না।  রাজ্য সরকার আপনাদের পাশে রয়েছে এবং প্রশাসন সর্বদা  পরিস্থিতির উপর নজর রাখছে।

source: themodernjournal.in

The post ফণা তুলছে ফনী, আতঙ্কে বঙ্গবাসী। appeared first on দ্য মডার্ন জার্নাল .

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

দ্য মর্ডান জার্নাল ডেস্ক: আরো ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করছে ফণী। দীর্ঘক্ষণ  আগেই ওড়িশার উপকূল বর্তী অঞ্চলে আছড়ে পড়েছে এই ভয়ানক ঘূর্ণিঝড়টি। ঘণ্টায় প্রায়  ১৭৫-২০০ কিমি বেগে এই ঝড় বয়ে চলেছে পশ্চিমবঙ্গের দিকে  বলে জানা গিয়েছে। প্রায় ৩-৪ ঘণ্টা হতে  পারে এই ঝড়।আবহাওয়া দপ্তরের  রিপোর্ট অনুযায়ী যে সময় আছড়ে পড়ার কথা ছিল, তার বেশ কিছুক্ষণ আগেই ওড়িশার  উপকূলবর্তী অঞ্চলে গুলিতে আছড়ে পড়ছে ফণী।

পুরী এবং গোপালপুরের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয়। এখনো পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী  সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে গঞ্জাম ও গজপতি জেলা। ঝড়ের দাপটে পুরীর সমুদ্রে প্রবল জলোচ্ছ্বাস দেখা যাচ্ছে। এলাকায়  বিদ্যুৎ পরিষেবা বন্ধ রয়েছে।   বিভিন্ন এলাকায় ঝরের তাণ্ডবে ভেঙে পড়েছে গাছ এবং ঘর বাড়ি। ঘূর্ণিঝড়ের জেরে ত্রস্ত স্থানীয় বাসিন্দারা।

ছবি গুগল থেকে সংগৃহীত।

গতকাল দিল্লির মৌসম ভবনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে ১২টার মধ্যে ফণী আছড়ে পড়বে পুরী সংলগ্ন গোপালপুরে। এরপর ঝরের তীব্রতা কিছুটা  কমিয়ে তটরেখা ধরে সেটি পশ্চিমবঙ্গে ঢুকে দক্ষিণবঙ্গের ওপর দিয়ে বাংলাদেশের দিকে চলে যেতে পারে। সেই সতর্কবার্তা অনুযায়ী ঘূর্ণীঝড় ফণী পুরীতে আছড়ে পড়ার পর এরাজ্যেও তার প্রভাবে তাণ্ডব শুরু হয়ে গিয়েছে। আর কিছুক্ষণ পরই  ফণী তার শক্তি কিছুটা কমিয়ে পশ্চিমবঙ্গে ঢুকে পড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই   নামখানা, মেদিনীপুর উপকূল, দীঘা, শঙ্করপুর, মন্দারমণি সহ বেশ কিছু জায়গায় ঝোড়ো হাওয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। মেদিনীপুরের বহু রাস্তায় গাছ ভেঙে পড়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। ভেঙে পড়েছে বেশ কিছু হোর্ডিংও। দীঘায় কাল থেকেই  পর্যটকদের সতর্ক করা হয়েছে । ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে দক্ষিণবঙ্গে  ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কার কথা আগেই জানিয়েছিল আবহাওয়া দপ্তর। রাজ্য প্রশাসন, রেল, বন্দর সহ বিভিন্ন এজেন্সিগুলি ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানি আটকানোর জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

পাকিস্তানের অবস্থা শোচনীয়, দেখে নিন কত হল নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম।

গতকাল  নবান্নে দুই পর্যায়ে উপকূলরক্ষী, নৌবাহিনী ও বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের আধিকারিকদের নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করেন মুখ্যসচিব মলয় দে। নবান্নে বিশেষ কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছ।  আজ সকাল থেকেই পুরো বিষয়ে কড়া নজর রাখছে নবান্ন। ফনীর ভয়ানক আবহাওয়ার জন্য আজ এবং আগামীকালের সমস্ত নির্বাচনী সভা বাতিল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ সকালে রাজ্যবাসীর কাছে তিনি আবেদন করেন দয়া করে সকলে বাড়িতেই থাকুন। আর কোনওরকম গুজবে কান দেবেন না।  রাজ্য সরকার আপনাদের পাশে রয়েছে এবং প্রশাসন সর্বদা  পরিস্থিতির উপর নজর রাখছে।

The post ফণা তুলছে ফনী, আতঙ্কে বঙ্গবাসী। appeared first on দ্য মডার্ন জার্নাল .

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

The Indian Express এর বিশেষ প্রতিবেদন থেকে উপস্থাপিতঃ

২০০৫ সালের আগে ভেষজ আবিরের প্রচলন তো দূরের কথা, নামও কেউ শোনেনি। ফলে দোলের পর স্পর্শকাতর চামড়ার মানুষদের হত মহা বিপত্তি। সমস্যা তৈরি হয়েছিল বেশ কয়েকশত বছর ধরে চলে আসা রাসায়নিক আবির নিয়ে যা চামড়ার পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকারক। দোলের পর চামড়ার সমস্যা নিয়ে ডাক্তারের কাছে ছোটা মানুষজন আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার চোখরাঙ্গানি হয়ে উঠেছিল ভারতবর্ষে দোলের পরের চেনা ছবি। প্রাচীনকালে অবশ্য হলুদ, কেতকি, পলাশ, কদম ইত্যাদী দিয়ে রঙ তৈরি হত। কিন্তু সেগুলি আবার ফিরিয়ে নিয়ে আসা চ্যালেঞ্জসাপেক্ষই নয়, বরং ছিল অসম্ভবও
local news today near me

২০০৫ সালে এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান খুজতে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের নেতৃত্বাধীন পশ্চিমবঙ্গ সরকার নির্দেশ দেয় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন প্রকৌশল বিভাগ (Chemical Engineering department of Jadavpur University) -কে।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৎকালীন প্রধানাচার্য সিদ্ধার্থ দত্ত বলেন, “এ বিষয়ে কাজ শুরু হয় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উচ্চশিক্ষা দফতর থেকে দোল কে পরিবাশ-বান্ধব বানানোর নির্দেশ আসার পর থেকেই। বিশ্বের সবচেয়ে বড় ফুলবাজার, ‘মল্লিক বাজার’ থেকে পাওয়া টন টন শুকনো ফুল ও গঙ্গায় ফেলে দেওয়া ফুল থেকে প্রাথমিক কাজ শুরু হয়।”

তারপর তিন বছরের নিরলস পরিশ্রমের পর ২০০৮ সালে ভেষজ আবির তৈরি করতে সক্ষম হয় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ যা এখন দোলের একটি প্রধান ও অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কী করে তৈরি হল এই আবির?

এই ‘পুষ্প আবির’ তৈরি হয়েছিল ট্যালকম পাউডারের মতন সূক্ষ দানার উপকরণকে ভিত্তি করে যা মানুষের চামড়ায় কোনওরকম অস্বস্তি তৈরি করে না। বাজার ও গঙ্গা উপকূল থেকে শুকনো ফুল আহরণের পর সেগুলিকে মিহি করে নেওয়া হল প্রথমে। এই আবির বানানোর প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হয়েছিল বাগনানে অবস্থিত একটি পাইলট প্লান্ট এ। এই কুচো ফুলগুলি তারপর ৭০ থেকে ৮০ ডিগ্রি উষ্ণতায় সেদ্ধ করে লব্ধ পদার্থটিকে ট্যালকম পাউডার সাবস্টেন্স ও আলাম [Alum – XAl(SO4)2·12H2O] এর সাথে (যাকে আমরা চলতি ভাষায় ফটকিরি বলে জানি) মিশিয়ে তৈরি হল ভেষজ পুষ্প আবির। এই গবেষণায় সিদ্ধার্থ দত্তর সাথে অংশ নিয়েছিলেন আচার্য চিরঞ্জীব ভট্টাচার্য ও উক্ত বিভাগের সংশ্লিষ্ট বিদ্যার্থিরাও।

“ফোর্থ পিলার অফ আওয়ার ডেমোক্রেসি”।সত্যি খুব হাস্যকর বিষয়।

এই গবেষণার ফলে গাদা ফুল (Marigold) থেকে তৈরি হল সবুজ ও হলুদ, পলাশ (Flame of Forest) থেকে তৈরি হল কমলা, জবা (China Rose) থেকে তৈরি হল লাল ও দইগাটা (Bixa) ফুলের বীজ থেকে তৈরি হল গোলাপী ও বেগুনি।

অবশেষে ২০০৯ সালে সিদ্ধার্থ দত্তর নামে পেটেন্ট জমা পড়ল এই ভেষজ আবিরের। জার্মানি, আমেরিকা ও ফ্রান্সের মতন দেশগুলি এই আবির বানানোর পদ্ধতি শিখতে যাদবপুরে এসে ভিড় জমাল। শুধু দেশ বিদেশের কম্পানিগুলিই নয়, যাদবপুর থেকে এই আবির বানানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হল সমাজসেবামূলক সংস্থা বা NGO গুলিকেও। আজ এই আবির অনেক স্বনির্ভর গোষ্ঠির বাঁচার পাথেয় যুগিয়ে চলেছে।local news today near me

The post ভেষজ আবিরঃ ধন্যবাদ দিন যাদবপুরকে appeared first on The Modern Journal.in.

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

The Indian Express এর বিশেষ প্রতিবেদন থেকে উপস্থাপিতঃ

২০০৫ সালের আহে ভেষজ আবিরের প্রচলন তো দূরের কথা, নামও কেউ শোনেনি। ফলে দোলের পর স্পর্শকাতর চামড়ার মানুষদের হত মহা বিপত্তি। সমস্যা তৈরি হয়েছিল বেশ কয়েকশত বছর ধরে চলে আসা রাসায়নিক আবির নিয়ে যা চামড়ার পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকারক। দোলের পর চামড়ার সমস্যা নেই ডাক্তারের কাছে ছোটা মানুষজন আর বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থার চোখরাঙ্গানি হয়ে উঠেছিল ভারতবর্ষে দোলের পরের চেনা ছবি। প্রাচীনকালে অবশ্য হলুদ, কেতকি, পলাশ, কদম ইত্যাদী দিয়ে রঙ তৈরি হত। কিন্তু সেগুলি আবার ফিরিয়ে নিয়ে আসা চ্যালেঞ্জসাপেক্ষই নয়, বরং ছিল অসম্ভবও।

২০০৫ সালে এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান খুজতে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের নেতৃত্বাধীন পশ্চিমবঙ্গ সরকার নির্দেশ দেয় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন প্রকৌশল বিভাগ (Chemical Engineering department of Jadavpur University) -কে।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৎকালীন প্রধানাচার্য সিদ্ধার্থ দত্ত বলেন, “এ বিষয়ে কাজ শুরু হয় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উচ্চশিক্ষা দফতর থেকে দোল কে পরিবাশ-বান্ধব বানানোর নির্দেশ আসার পর থেকেই। বিশ্বের সবচেয়ে বড় ফুলবাজার, ‘মল্লিক বাজার’ থেকে পাওয়া টন টন শুকনো ফুল ও গঙ্গায় ফেলে দেওয়া ফুল থেকে প্রাথমিক কাজ শুরু হয়।”

তারপর তিন বছরের নিরলস পরিশ্রমের পর ২০০৮ সালে ভেষজ আবির তৈরি করতে সক্ষম হয় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ যা এখন দোলের একটি প্রধান ও অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কী করে তৈরি হল এই আবির?

এই ‘পুষ্প আবির’ তৈরি হয়েছিল ট্যালকম পাউডারের মতন সূক্ষ দানার উপকরণকে ভিত্তি করে যা মানুষের চামড়ায় কোনওরকম অস্বস্তি তৈরি করে না। বাজার ও গঙ্গা উপকূল থেকে শুকনো ফুল আহরণের পর সেগুলিকে মিহি করে নেওয়া হল প্রথমে। এই আবির বানানোর প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হয়েছিল বাগনানে অবস্থিত একটি পাইলট প্লান্ট এ। এই কুচো ফুলগুলি তারপর ৭০ থেকে ৮০ ডিগ্রি উষ্ণতায় সেদ্ধ করে লব্ধ পদার্থটিকে ট্যালকম পাউডার সাবস্টেন্স ও আলাম [Alum – XAl(SO4)2·12H2O] এর সাথে (যাকে আমরা চলতি ভাষায় ফটকিরি বলে জানি) মিশিয়ে তৈরি হল ভেষজ পুষ্প আবির। এই গবেষণায় সিদ্ধার্থ দত্তর সাথে অংশ নিয়েছিলেন আচার্য চিরঞ্জীব ভট্টাচার্য ও উক্ত বিভাগের সংশ্লিষ্ট বিদ্যার্থিরাও।

এই গবেষণার ফলে গাদা ফুল (Marigold) থেকে তৈরি হল সবুজ ও হলুদ, পলাশ (Flame of Forest) থেকে তৈরি হল কমলা, জবা (China Rose) থেকে তৈরি হল লাল ও দইগাটা (Bixa) ফুলের বীজ থেকে তৈরি হল গোলাপী ও বেগুনি।

অবশেষে ২০০৯ সালে সিদ্ধার্থ দত্তর নামে পেটেন্ট জমা পড়ল এই ভেষজ আবিরের। জার্মানি, আমেরিকা ও ফ্রান্সের মতন দেশগুলি এই আবির বানানোর পদ্ধতি শিখতে যাদবপুরে এসে ভিড় জমাল। শুধু দেশ বিদেশের কম্পানিগুলিই নয়, যাদবপুর থেকে এই আবির বানানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হল সমাজসেবামূলক সংস্থা বা NGO গুলিকেও। আজ এই আবির অনেক স্বনির্ভর গোষ্ঠির বাঁচার পাথেয় যুগিয়ে চলেছে।

The post ভেষজ আবিরঃ ধন্যবাদ দিন যাদবপুরকে appeared first on The Modern Journal.in.

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

আজ আমি যে বিষয়টি নিয়ে লিখতে চলেছি সেটা কিঞ্চিত স্পর্শকাতর। তাই মনে kolkata bangla news যতটা পারা যায় সাহস নিয়ে লিখতে বসেছি । ভাবছেন কি এমন বিষয় যেটা নিয়ে লেখার জন্য মনে সাহস নিতে হচ্ছে ?। বিষয়টি নিয়ে লেখার আগে আমি একটা কথা বলেতে  চাই। আমি নিজে সাংবাদিকতার ছাত্র। আর আমি আজ যে বিষয়টি নিয়ে লিখতে চলেছি সেটা হলো গণতন্ত্রের ‘চতুর্থ স্তম্ভ ‘, “ফোর্থ পিলার অফ আওয়ার ডেমোক্রেসি ” অর্থাৎ সংবাদ মাধ্যম বা মিডিয়া । মিডিয়াকে আমাদের গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ বলা হয়। কিন্তু চতুর্থ স্তম্ভর কাজ কি শুধু  মানুষের কাছে সংবাদ পরিবেশন করা? । না শুধু সংবাদ পরিবেশন করা নয় । সংবাদ মাধ্যমের প্রধান কাজ গণতন্ত্রকে আরো দৃঢ় ও মজবুত করা।

আমায় যদি কেউ প্রশ্ন করে এবং এক কথায় উত্তর দিতে বলে । যে সংবাদ মাধ্যম কি তার নিরপেক্ষতা বজায় রেখেছে ?। আমি নির্দ্বিধায় তার প্রশ্নের উত্তরে বলব ‘না ‘। সংবাদ মাধ্যম তার নিরপেক্ষতা বজায় রাখছেন না।  আপনারা হয়তো ভাবছেন আমার হঠাৎ করে কেন এমন মনে হচ্ছে।  আপনাদের বলতে চাই সংবাদ মাধ্যমগুলি আপনাদের সংবাদের মোড়কে বিনোদন দিচ্ছে এবং আপনিও সংবাদের মোড়কে দেওয়া বিনোদনে আনন্দিত হচ্ছেন। আর আপনাকে সংবাদ পরিবেশনের নামে সংবাদ চ্যানেল গুলি নিজেদের টিআরপি অর্থাৎ টেলিভিশন রেটিং পয়েন্ট কে উচ্চ মাত্রায় নিয়ে যাচ্ছে।


ছবটি গুগোল থেকে সংগৃহীত।
শ্রীদেবীর মৃত্যু কিভাবে হয়েছিল সেটা দেখানোর জন্য একজন সাংবাদিক বাথটাবে শুয়ে পড়েছিলেন। সেই ছবি।

  এই পর্যন্ত সব ঠিকই ছিল আমার ব্যক্তিগতভাবে কোন সমস্যা ছিল না । অবশ্য সমস্যা থাকলেই বা , আমার বা আমাদের সমস্যায় কার কী আসে যায় । কিন্তু আমার সমস্যার কথা আমি বলবোই যতদিন হাতে কলম থাকবে ততদিন।  তাহলে বলি,  আপনার হয়তো মনে আছে শ্রীদেবীর মৃত্যু কিভাবে হয়েছিল সেটা দেখানোর জন্য একজন সাংবাদিক বাথটাবে শুয়ে পড়েছিলেন । আসলে তার মূল উদ্দেশ্য ছিল  কিভাবে সংবাদের আড়ালে দর্শকদের বিনোদন দেওয়া যায়।http://www.themodernjournal.in/24-ghanta-bengali-news/

ভারতীয় উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান যখন পাকিস্তানি সেনাদের কাছে বন্দী হয়েছেন এবং সেটা জেনেও তিনি পাকিস্তানি সেনাদের প্রশ্নের জবাবে বলেছিলন”  দুঃ খিত অফিসার আমি কোন মিশনে এসেছিলাম সেটা বলতে বাধ্য নই”। ঠিক সেই সময় ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের একাংশ অভিনন্দন বর্তমানের বাড়ি পৌঁছে গিয়ে , তিনি কোথায় থাকেন, কোথায় বসেন , বাড়িতে কে কে আছেন,।তিনি সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কি কি করেন । সবটা জানাচ্ছে দর্শকদের । সত্যি খুব হাস্যকর বিষয়।কিন্তু এটাই সত্যি যে পাকিস্তানি সেনাদের যদি অভিনন্দন বর্তমানের বিষয়ে কিছু জানার হত তাহলে খুব বেশি পরিশ্রম করতে হতো না । শুধুমাত্র ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের যে কোন চ্যানেল চালিয়ে রাখলেই হয়তো তারা অভিনন্দন বর্তমানের ব্যাপারে যাবতীয় তথ্য পেয়ে যেতেন।বলাই বাহুল্য, কি ভাবে ভারতবাসীর ভাবাবেগকে কাজে লাগিয়ে চ্যানেলের টিআরপি উচ্চ পর্যায় নিয়ে যেতে হয় তা ভারতীয় সংবাদমাধ্যম গুলি খুব ভালো করেই জানে। সবশেষে বলতে চাই এখনো হয়তো মিডিয়া বা সংবাদ মাধ্যম পুরোপুরি বিকিয়ে যায়নি তাই হয়তো ভারতের গণতন্ত্র এখনো দৃঢ় ও মজবুত রয়েছে ।

The post “ফোর্থ পিলার অফ আওয়ার ডেমোক্রেসি”।সত্যি খুব হাস্যকর বিষয়। appeared first on The Modern Journal.in.

  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

শুক্রবার বিকেলে এক ভয়াবহ ঘটনার সাক্ষী রইল নবান্ন। এইদিন বিকালে all latest news in bengali নবান্নের ঠিক সামনে, এক ব্যাক্তিকে নিজের  শরীরে আগুন লাগিয়ে নবান্নের দিকে ছুটে আসতে দেখা যায়। এমন ভয়াবহ ঘটনা দেখে নবান্নে কর্মরত পুলিশ কর্মীরা ছুটে আসেন। নবান্নে উপস্থিত দমকল কর্মী এবং পুলিশ কর্মীদের তৎপরতায়  আগুন নেভানো সম্ভব হয়। তারপর ঐ ব্যাক্তিকে একটি অ্যাম্বুল্যান্সে করে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ।

http://www.themodernjournal.in/india-pakistan-war/

ঘটনার দিন নবান্নে ছিলেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্ধপাধ্যায় । তবে নবান্নের সামনে এমন ঘটনা ঘটায় স্তম্ভিত পুলিশ প্রশাসন। কিন্তু কেনইবা ঐ ব্যাক্তি নবান্নের সামনে এমন ঘটনা ঘটালেন ? পুলিশ জানিয়েছে , ওই যুবকের নাম বাপন সাহা (৪১)। তাঁর বাড়ি হাওড়ার সালকিয়ায় লেনে। তাহলে প্রশ্ন হল  কেন তিনি নবান্নের সামনেই এমন ঘটনা ঘটালেন ? সূত্রের খবর, ‘‘মঙ্গলবার থেকে বাপনবাবু নিখোঁজ ছিলেন। গোলাবাড়ি থানায় নিখোঁজের ডায়েরি করা হয়েছে পরিবারের পক্ষ থেকে ।বাপনবাবুর প্রতিবেশীরা জানিয়েছে , বাপনবাবুর বাড়ির ঠিক সামনেই একটি নির্মাণ কাজ চলছে । প্রোমোটাররা সেইখানে কারখানা করতে চেয়েছিলেন । কিন্তু বাপনবাবু কারখানা করতে বাঁধা দেয় । এরই  মধ্যে ওই প্রোমোটার সীমানা প্রাচীরে করতে চান। তাতেও বাধা দেন বাপনবাবু । এর পরেই গত সোমবার একদল অগ্যাত্য পরিচিত যুবক এসে বাপনবাবুকে হেনস্থা করে। এলাকার বাসিন্দারা জানান, ওই দিনই গলির মধ্যে নিজের গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে আগুন লাগানোর চেষ্টা করেন বাপনবাবু। স্থানীয় বাসিন্দারা ধরে ফেলায় সে যাত্রায় তিনি বেঁচে যান তিনি । তাহলে কি বাপনবাবু নবান্নের সামনে আত্মহত্যার চেষ্টা করে মুখ্যমন্ত্রী বা পুলিশ প্রশাসন এর নজর কাড়তে চেয়েছিলেন ? । সেটা অবস্য জানা যাবে বাপনবাবু সুস্থ হওয়ার পর । পুলিশ জানিয়েছে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক ।http://www.themodernjournal.in/24-ghanta-live-news/

The post ভয়াবহ ঘটনা নবান্নের সামনে। appeared first on The Modern Journal.in.

Read for later

Articles marked as Favorite are saved for later viewing.
close
  • Show original
  • .
  • Share
  • .
  • Favorite
  • .
  • Email
  • .
  • Add Tags 

Separate tags by commas
To access this feature, please upgrade your account.
Start your free month
Free Preview